0 votes
256 views
in খাদ্য ও পানীয় (Food & Drink) by (19 points)
কোকাকোলা বা অন্যান্য সফট ড্রিঙ্কস খাওয়ার হুকুম কি? এগুলো খাওয়া কি জায়েজ? আর কোকাকোলা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানে হালাল পদে ( প্রকৌশলী ) চাকরি করা কি জায়েজ হবে?

1 Answer

0 votes
by (255,440 points)
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
কোকাকোলা সম্পর্কে হালাল হারাম বিধান নিম্নোক্ত তিনটি কারণের যেকোনো কারণে হতে পারে।যথাঃ-(ক)এলকোহলঃ সকল প্রকার এলকোহল সম্পর্কে হারামের বিধান জারি করা যাবে না,যতক্ষণ না তাতে হারামের বিধান সুস্পষ্ট পাওয়া যাচ্ছে।এ বিষয়ে বিস্তারিত জানুন-165

(খ)শূকরের চর্বিঃ শূকরের চর্বি হারাম।কম হোক বা বেশী হোক।তবে যদি সেটা ভিন্নরূপ ধারণ করে নেয়,তবে তাতে রূখসত চলে আসে।যদিও ব্যবহার না করাই উত্তম ও তাকওয়ার নিকটবর্তী।বিস্তারিত জানুন- 425

(গ)কাফিরদের সাহায্য করা, কাফিরদের সাহায্য করা সর্বসম্মতিক্রমে হারাম।

সু-প্রিয় পাঠকবর্গ!
প্রথম ও দ্বিতীয় কারণে হিসেবে বলা যায় যে,কোকাকোলা না খাওয়াই উত্তম।

নু'মান ইবনে বশির রাযি থেকে বর্ণিত
 ﺇِﻥَّ ﺍﻟْﺤَﻠَﺎﻝَ ﺑَﻴِّﻦٌ ، ﻭَﺇِﻥَّ ﺍﻟْﺤَﺮَﺍﻡَ ﺑَﻴِّﻦٌ، ﻭَﺑَﻴْﻨَﻬُﻤَﺎ ﻣُﺸْﺘَﺒِﻬَﺎﺕٌ ﻟَﺎ ﻳَﻌْﻠَﻤُﻬُﻦَّ ﻛَﺜِﻴﺮٌ ﻣِﻦَ ﺍﻟﻨَّﺎﺱِ ، ﻓَﻤَﻦِ ﺍﺗَّﻘَﻰ ﺍﻟﺸُّﺒُﻬَﺎﺕِ ﺍﺳْﺘَﺒْﺮَﺃَ ﻟِﺪِﻳﻨِﻪِ ، ﻭَﻋِﺮْﺿِﻪِ ، ﻭَﻣَﻦْ ﻭَﻗَﻊَ ﻓِﻲ ﺍﻟﺸُّﺒُﻬَﺎﺕِ ﻭَﻗَﻊَ ﻓِﻲ ﺍﻟْﺤَﺮَﺍﻡِ ، ﻛَﺎﻟﺮَّﺍﻋِﻲ ﻳَﺮْﻋَﻰ ﺣَﻮْﻝَ ﺍﻟْﺤِﻤَﻰ ، ﻳُﻮﺷِﻚُ ﺃَﻥْ ﻳَﺮْﺗَﻊَ ﻓِﻴﻪِ ، ﺃَﻟَﺎ ﻭَﺇِﻥَّ ﻟِﻜُﻞِّ ﻣَﻠِﻚٍ ﺣِﻤًﻰ ، ﺃَﻟَﺎ ﻭَﺇِﻥَّ ﺣِﻤَﻰ ﺍﻟﻠﻪِ ﻣَﺤَﺎﺭِﻣُﻪُ
নিশ্চয়ই হালাল স্পষ্ট এবং হারামও স্পষ্ট, আর এ উভয়ের মাঝে রয়েছে সন্দেহজনক বিষয়, অনেক লোকই সেগুলো জানে না। যে ব্যক্তি এসব সন্দেহজনক বিষয় থেকে দূরে থাকে সে তার দ্বীন ও মর্যাদাকে নিরাপদে রাখে, আর যে লোক সন্দেহজনক বিষয়ে পতিত হবে সে হারামের মধ্যে লিপ্ত হয়ে পড়বে। যেমন কোন রাখাল সংরক্ষিত চারণভূমির পাশে পশু চরায়, আশংকা রয়েছে সে পশু তার ভেতরে গিয়ে ঘাস খাবে। সাবধান! প্রত্যেক রাজারই সংরক্ষিত এলাকা থাকে, সাবধান আল্লাহর সংরক্ষিত এলাকা হলো তার হারামকৃত বিষয়গুলো। জেনে, রেখো, দেহের মধ্যে এক টুকরা গোশত আছে। যখন তা সুস্থ থাকে তখন সমস্ত দেহই সুস্থ থাকে। আর যখন তা নষ্ট হয়ে যায় তখন সমস্ত দেহই নষ্ট হয়ে যায়। স্মরণ রেখো, তা হলো 'কালব' হৃদয়।(সহীহ মুসলিম-১৫৯৯)

আর তৃতীয় কারণ হিসেবে বলা হবে যে,কোকাকোলা ক্রয় করা ও খাওয়া হারাম।কেননা এদ্ধারা কাফিরদের কে সাহায্য করা হচ্ছে।এই কারণ উল্লেখপূর্বক দারুল উলূম দেওবন্দ থেকে ফাতাওয়া দেয়া হয়েছে যে,কোকাকোলা, পেপসি, সেভেনআপ ও ইউনিলিভার সহ যাবতীয় অমুসলিম মুসলিম বিদ্বেষীদের যাবতীয় পণ্য ক্রয় করা হারাম।

সুপ্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!

একজন মুসলমান হিসেবে বাজারে কোনো মুসলিম কম্পানির পণ্য ক্রয় করাই উচিৎ যদি বাজারে মানসম্মত মুসলিম কম্পানির পণ্য থাকে।যদি না পাওয়া যায়,তাহলে অমুসলিম কম্পানির পণ্য ক্রয় করা যাবে।এ রুখসত সর্বদাই থাকবে।সুতরাং বর্তমানে কোকাকোলা জাতীয় ড্রিংক ক্রয় না করাই মুসলামের জন্য উচিৎ।হ্যা প্রয়োজনে ক্রয় করা যাবে।

কোকাকোলা ইত্যাদি কম্পানিতে চাকুরী করা না জায়েয হবেনা।
ফাতাওয়া শামীতে বর্ণিত আছে,
ﻭﻟﻮ ﺁﺟﺮ ﻧﻔﺴﻪ ﻟﻴﻌﻤﻞ ﻓﻲ ﺍﻟﻜﻨﻴﺴﺔ ﻭﻳﻌﻤﺮﻫﺎ ﻻ ﺑﺄﺱ ﺑﻪ ﻷﻧﻪ ﻻ ﻣﻌﺼﻴﺔ ﻓﻲ ﻋﻴﻦ ﺍﻟﻌﻤﻞ
যদি কেউ কোনো গির্জায় শ্রমিক হিসেবে কাজ করে,অথবা টাকার বিনিময়ে গির্জা নির্মাণ করে দেয়, তাহলে এতে তার কোনো গুনাহ হবে না। কেননা এখানে মূল কাজে কোনো গুনাহ নাই।
(ﺭﺩ ﺍﻟﻤﺤﺘﺎﺭ ﻋﻠﻰ ﺍﻟﺪﺭ ﺍﻟﻤﺨﺘﺎﺭ٦\٣٩٢ » ﻛﺘﺎﺏ ﺍﻟﺤﻈﺮ ﻭﺍﻹﺑﺎﺣﺔ » ﻓﺼﻞ ﻓﻲ ﺍﻟﺒﻴﻊ)
(রদ্দুল মুহতার,৬/৩৯২)
وصح بيع غير الخمر و مفاده صحة بيع الحشيشة الخ
মদ ব্যতীত অন্যান্য নেশদ্রব্য বিক্রি করা বৈধ,সারমর্ম হলঃহাশীশ(একপ্রকার তামাক দ্রব্য) বিক্রিও বৈধ।(রদ্দুল মুহতার,৬/৪৫৪)

ফাতাওয়ায়ে উসমানী, ৩/৮৯,তে এ বিষয়ে আরো বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।
তানক্বিহু ফাতাওয়াল হামিদিয়্যাহ,৬/৩৬৬।মাজ্বমুআতুল ফাতাওয়া,২/২৭।ফাতাওয়া রশিদিয়্যাহ, ৪৮৮।ক্বিফায়াতুল মুফতী, ৯/১৪৮,  জানুন- 7143


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

by (255,440 points)
–1
সংশোধন ও সংযোজন করা হয়েছে।

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...