0 votes
30 views
in ঈমান ও বিশ্বাস (Faith and Belief) by (11 points)

আসসালামুয়ালাইকুম,

আমার বাবার কিছু ভয়াবহ আক্বিদাহ আছে। তিনি ভন্ড পীর পন্থী মানুষ। তার আক্বিদা বা বিশ্বাস সম্পর্কিত কয়েকটি বিষয় আমি নিচে তুলে ধরছি।

  • তিনি হিন্দুধর্মকে সত্যধর্ম বলে বিশ্বাস করেন
  • বিভিন্ন দেব দেবীদের ভগবানের সন্তান বলেছেন। এমন সময় আমি সুরা ইখলাস শুনিয়ে দিয়েছি। 
  • অসুস্থ হলে বা কোন বিপদে পড়লে তিনি তার পীরের কাছে সাহায্য চায়। যেমনঃ "দয়াল এইটা করে দাও"। "ওমুক শাহ জিন্দাপির এইটা করে দাও"
  • তার বিশ্বাস খৃস্টান ধর্ম, বৌদ্ধ ধর্ম, হিন্দু ধর্ম, ইসলাম  ধর্ম সবগুলোই আল্লাহ্‌ প্রদত্ত ধর্ম। 
  • পীরকে জীবিত অবস্থায় সম্ভবত সিজদাহ করত। এখন মৃত পীরের ছবিতে সিজদাহ করে। 
  • উনার পীর উনাকে জুম্মার নামায আদায় করতে বলেছেন তাই শুধু জুম্মার নামাযই আদায় করেন। 
  • কুরআন হাদিস সরাসরি অস্বীকার করেন না। তবে আমরা কোরআন হাদিস নিয়ে কিছু বলতে গেলে ক্ষেপে যান। কোন কিছু শুনতে চান না। হিন্দুদের বেদ, শ্রীমদভগবদগীতা ইত্যাদি গ্রন্থ থেকে হিন্দুদের মূর্তি পূজার বিরোধী রেফারেন্স দিলেও বিশ্বাস করতে চান না। 
  • মোট কথা আমাদের কোন কথা উনি শুনতে নারাজ। উনার কথা উনার হিসাব উনি দিবেন। উনার কাজের জন্য আমাদের জিজ্ঞেস করা হবে না। 
  • আমরা কেউ উনাকে কাফির বলিনি। আমরা বলেছি তোমার তো ঈমানেও সমস্যা আছে। উনি তখন বলেছেন আমি কাফির হলে তো তোমরাও কাফেরের ছেলেমেয়ে। 
 
উপরের এইসব ভ্রান্ত আক্বিদা ও বিশ্বাস গুলো হচ্ছে একটা ছোট নমুনা। আরও অনেক বড় ছোট ভ্রান্ত আক্বিদা হয়তো তিনি লালন করেন যা আমরা জানি না। 
 
এমন অবস্থায় আমার প্রশ্নঃ
  1. উনি কি মুসলিম?

  2. এই আক্বিদা নিয়ে মৃত্যু হলে উনার জানাজা পড়ার হুকুম কি? উনি যদি আমার আগে মৃত্যুবরণ করেন তাহলে আমি কি উনার জন্য দুয়া করতে পারব?

  3. আমার মায়ের উনার সাথে থাকার হুকুম কি?

  4. আমাদের উনার সাথে থাকার হুকুম কি?

  5. এই ধরনের মানুষকে সহিহ আক্বিদার পথে আনাটা কতটা কষ্টের তা হয়তো শাইখ জেনে থাকবেন। মাঝে মাঝে এমন এমন কথা উনি বলে ফেলেন যে নিজেকে কন্ট্রোল করা সম্ভব হয়না। মাঝে মাঝে গলা উঁচু হয়ে যায়, খারাপ আচরন হয়ে যায়। এমন অবস্থায় উনাকে দাওয়াত কিভাবে দিব?  

  6. ভগভানের সন্তান বলার সময় সুরা ইখলাস বলাটা কি ঠিক ছিল? 

 

 

1 Answer

0 votes
by (97,760 points)

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ- 

"তিনি হিন্দুধর্মকে সত্যধর্ম বলে বিশ্বাস করেন
বিভিন্ন দেব দেবীদের ভগবানের সন্তান বলেছেন। এমন সময় আমি সুরা ইখলাস শুনিয়ে দিয়েছি। 
অসুস্থ হলে বা কোন বিপদে পড়লে তিনি তার পীরের কাছে সাহায্য চায়। যেমনঃ "দয়াল এইটা করে দাও"। "ওমুক শাহ জিন্দাপির এইটা করে দাও"
তার বিশ্বাস খৃস্টান ধর্ম, বৌদ্ধ ধর্ম, হিন্দু ধর্ম, ইসলাম  ধর্ম সবগুলোই আল্লাহ্ প্রদত্ত ধর্ম। 
পীরকে জীবিত অবস্থায় সম্ভবত সিজদাহ করত। এখন মৃত পীরের ছবিতে সিজদাহ করে। 
উনার পীর উনাকে জুম্মার নামায আদায় করতে বলেছেন তাই শুধু জুম্মার নামাযই আদায় করেন। 
কুরআন হাদিস সরাসরি অস্বীকার করেন না। তবে আমরা কোরআন হাদিস নিয়ে কিছু বলতে গেলে ক্ষেপে যান। কোন কিছু শুনতে চান না। হিন্দুদের বেদ, শ্রীমদভগবদগীতা ইত্যাদি গ্রন্থ থেকে হিন্দুদের মূর্তি পূজার বিরোধী রেফারেন্স দিলেও বিশ্বাস করতে চান না।"

এগুলো শিরকি আকিদা। এর মধ্যে সবচেয়ে মারাত্বক যে শিরকি আকিদা,সেটা হল, হিন্দু দেবদেবীকে সত্য মনে করা।এই একটিমাত্র আকিদাই উনার কাফির হওয়ার জন্য যথেষ্ট।


কুফরী বাক্যর অর্থ জানা নেই এবং বলার ইচ্ছে নেই তবে মুখ ফসকে কোনো কুফরী বাক্য মুখ থেকে উচ্ছারণ হয়ে গেছে,এমতাবস্থায় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি কাফির হবে না।যেমন হযরত আবুযর রাযি থেকে বর্ণিত রয়েছে,
عَنْ أَبِي ذَرٍّ الْغِفَارِيِّ رضي الله عنه قَالَ :قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ :(إِنَّ اللَّهَ تَجَاوَزَ عَنْ أُمَّتِي الْخَطَأَ وَالنِّسْيَانَ وَمَا اسْتُكْرِهُوا عَلَيْهِ)
রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেছেন,নিশ্চয় আল্লাহ তা'আলা আমার উম্মত থেকে ভূল ভ্রান্তি এবং নিরুপায় মূলক কাজ কে ক্ষমা করে দিয়েছেন।(সুনানু উবনি মা'জা-২০৪৩)

কুফরী বাক্যর অর্থ জানা রয়েছে,এবং বলার ইচ্ছাও রয়েছে,তবে কাফির হওয়ার জন্য বলেনি,বরং রং তামাশ মূলক কেউ বলল,তাহলে এমতাস্থায় সে কাফির হয়ে যাবে,
" مَنْ تَكَلَّمَ بِكَلِمَةِ الْكُفْرِ هَازِلًا أَوْ لَاعِبًا كَفَرَ عِنْدَ الْكُلِّ وَلَا اعْتِبَارَ بِاعْتِقَادِه
যে ব্যক্তি কোনো কুফুরি বাক্য রং তামাশা করে বলবে,সে কাফির হয়ে যাবে।যদিও তার এ'তেকাদ বা বিশ্বাসে কুফরি না থাকুক।(বাহরুর রায়েক-৫/১৩৪,ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়া-২/২৭৫-২৭৬)
বিস্তারিত জানুন- https://www.ifatwa.info/3012

সু-প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!
উনি কি মুসলিম?
(১)উনি কাফির হয়ে গেছেন।

এই আক্বিদা নিয়ে মৃত্যু হলে উনার জানাজা পড়ার হুকুম কি? 
(২)
উনার জানাযা পড়া যাবে না।

উনি যদি আমার আগে মৃত্যুবরণ করেন তাহলে আমি কি উনার জন্য দুয়া করতে পারব?
(৩)উনার জন্য দু'আও করতে পারবেন না।
আমার মায়ের উনার সাথে থাকার হুকুম কি?
(৪)
উনার সামনে ধারাবাহিক ৩ বার ইসলামকে পেশ করা হবে।যদি উনি মুসলমান হয়ে যান,তাহলে আপনার মায়ের সাথে বিবাহ বাকী থাকবে।যদি তিনবার ইসলাম পেশ করার পরও উনি আবার ইসলামে ফিরে না আসেন,তাহলে উনি আর আপনার মায়ের সাথে উনার বৈবাহিক কোনো সম্পর্ক থাকবে না।

আমাদের উনার সাথে থাকার হুকুম কি?
(৪)
উনি তাওবাহ না করলে আপনারা আর একসাথে থাকতে পারবেন না।


ভগভানের সন্তান বলার সময় সুরা ইখলাস বলাটা কি ঠিক ছিল?
(৫)
জ্বী, ঠিকই আছে।যেহেতু সূরায়ে ইখলাছে একত্ববাদের আলোচনা রয়েছে।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...