0 votes
36 views
in Zakat & Charity by (13 points)
closed by
আসসালামু আলাইকুম, শাইখ। আক্বীকাহ অথবা বিবাহের অনুষ্ঠানে হাদিয়া নিয়ে গেলে তা কি জায়েয হবে? আমি যদি এটাকে রিচুয়াল না মনে করে কেবল 'হাদিয়া দেয়া নেয়া সুন্নাহ' এটা মনে করে দিই? একটু রেফারেন্স সহ আলোচনা হলে ভালো হয়।
closed

1 Answer

0 votes
by (7k points)
selected by
 
Best answer

বিসমিহি তা'আলা

জবাবঃ

হযরত আবু হুরায়রা রাযি থেকে বর্ণিত,

ﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﻫﺮﻳﺮﺓ – ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ – ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ :- « ﺗَﻬَﺎﺩَﻭْﺍ ﺗَﺤَﺎﺑُّﻮﺍ »

( ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻱ ﻓﻲ ﺍﻷﺩﺏ ﺍﻟﻤﻔﺮﺩ : 594 ، ﻭﻗﺎﻝ ﺍﺑﻦ ﺣﺠﺮ : ﺇﺳﻨﺎﺩﻩ ﺣﺴﻦ، ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻲ ﻓﻲ ﺳﻨﻨﻪ ﺍﻟﻜﺒﺮﻯ : ﻛﺘﺎﺏ ﺍﻟﻬﺒﺎﺕ، ﺭﻗﻢ ﺍﻟﺤﺪﻳﺚ : 11946 ) .

রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন,

তোমরা পরস্পর হাদিয়্যা আদান প্রদাণ করো,দেখবে তোমরা পরস্পর বন্ধু হয়ে যাবে।

আল-আদাবুল মুফরাদ-৫৯৪

হযরত আ'তা ইবনে আব্দুল্লাহ খুরাসানি রাহ,থেকে বর্ণিত,

ﻋﻦ ﻋﻄﺎﺀ ﺑﻦ ﻋﺒﺪ ﺍﻟﻠﻪ ﺍﻟﺨﺮﺍﺳﺎﻧﻲ، ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ :- « ﺗَﺼَﺎﻓَﺤُﻮﺍ ﻳﺬﻫﺐ ﺍﻟﻐﻞّ، ﻭﺗَﻬَﺎﺩَﻭْﺍ ﺗَﺤَﺎﺑُّﻮﺍ ﻭﺗﺬﻫﺐ ﺍﻟﺸﺤﻨﺎﺀ »

( ﺍﻟﻤﻮﻃﺄ، ﺑﺎﺏ ﻣﺎ ﺟﺎﺀ ﻓﻲ ﺍﻟﻤﻬﺎﺟﺮﺓ، ﺭﻗﻢ ﺍﻟﺤﺪﻳﺚ 16: )
রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন-

তোমরা মুসাফাহা করো,মুসাফাহা বিদ্ধেষকে দূরবিত করে।তোমরা পরস্পর হাদিয়্যা আদান- প্রদাণ করো,দেখবে তোমরা পরস্পর বন্ধু হয়ে যাবে।আর হ্যা হাদিয়্যা হিংসাকে দূরবিত করে।

মুওয়াত্তা ইবনে মালিক-হাদিস নং-১৬

হাদিয়্যা কোনো দিনবিশেষের সাথে নির্দিষ্ট নয়।

যে কোনো সময় হাদিয়্যা আদান-প্রদান করা যায়।

তবে কোনো রুসুম রেওয়াজ বা বিজাতীয়র অনুসরণ জ্ঞাপক হাদিয়্যা আদান-প্রদাণ সম্পূর্ণ নিষেধ ও হারাম।

রুসুম রেওয়াজের অর্থ হল,যে

অমুক যখন আমার ছেলের বিয়েতে হাদিয়্যা দিয়েছে তাহলে আমাকেও তার ছেলের বিয়েতে হাদিয়্যা দিতে হবে।

এরকম মনোভাব রেখে হাদিয়্যার আদান-প্রদান সম্পূর্ণ নাজায়েয। এটা রুসুম-রেওয়াজের অন্ধ অনুকরণ। আর রুসুম-রেওয়াজের স্থান ইসলামে নেই।

বিশেষকরে ভিন্নধর্মীদের রুসুম রেওয়াজের অনুসরণ মারাত্মক পর্যায়ের গোনাহ।

হাদীসে অমুসলিমদের আদর্শ চাল চলন কে অনুসরণ করতে কঠোরভাবে নিষেধ করা হয়েছে।

ﻋَﻦْ ﺍﺑْﻦِ ﻋُﻤَﺮَ ﻗَﺎﻝَ : ﻗَﺎﻝَ ﺭَﺳُﻮﻝُ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺻَﻠَّﻰ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻭَﺳَﻠَّﻢَ ﻣَﻦْ ﺗَﺸَﺒَّﻪَ ﺑِﻘَﻮْﻡٍ ﻓَﻬُﻮَ ﻣِﻨْﻬُﻢْ

অনুবাদঃ

হযরত ইবনে উমর রাঃ থেকে বর্ণিত,রাসুলুল্লাহ বলেন যে ব্যক্তি অন্য গোত্রে (অমুসলিম)-র অনুসরণ করবে সে তাদের-ই অন্তর্ভুক্ত হবে।

{আবু-দাউদ-৩৫১২}

বিজাতীয়র অনুকরণ সম্পর্কে সবিস্তারে জানুন

তাই রুসুম রেওয়াজের অনুসরণ না করে যদি বিয়ে-শাদী ইত্যাদিতে হাদিয়্যা দেয়া হয়,তাহলে তা  নাজায়েয হবে না।

কেননা হাদিয়্যা হাদীসে হাদিয়্যা আদান-প্রদানের ব্যাপারে খুবই তাগিদ আসিয়াছে।

আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

উত্তর লিখনে

মুফতী ইমদাদুল হক

ইফতা বিভাগ, IOM.

পরিচালক

ইসলামিক রিচার্স কাউন্সিল বাংলাদেশ

ইসলামিক ফতোয়া ওয়েবসাইটটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত। যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।
...