0 votes
52 views
in Salah (Prayer) by
রমজানে কোন কারনে একদিন তারাবীহ সম্পূর্ণ করতে না পারলে কি গুনাহ হবে?

1 Answer

0 votes
by (19.6k points)
জবাবঃ-

তারাবীহর সালাত ২০ রা'কাত সুন্নাতে মুু'আক্কাদা।

জামাতের সাথে পড়া সুন্নাতে মুআক্কাদা আলাল কিফায়া।তথা এলাকার কিছুসংখ্যক মসজিদে জামাতের সাথে পড়ে নিলে সবার পক্ষ থেকে জামাতের হক আদায় হয়ে যাবে।তবে ব্যক্তিগত ভাবে সবাইকে অবশ্যই পড়তে হবে।না পড়লে গোনাহ হবে।

সুন্নাতে মুয়াক্কাদা সম্পর্কে আল্লামা জুরজানী রাহ বলেনঃ
ﻭﺣﻜﻤﻬﺎ ﻛﺎﻟﻮﺍﺟﺐ -— ﺇﻻ ﺃﻥ ﺗﺎﺭﻙ ﺍﻟﻮﺍﺟﺐ ﻳﻌﺎﻗﺐ ﻭﺗﺎﺭﻛﻬﺎ ﻻ ﻳﻌﺎﻗﺐ - ( ﺍﻟﺘﻌﺮﻳﻔﺎﺕ ﻟﻠﺠﺮﺟﺎﻧﻰ 138-

সুন্নতে মুআক্কাদা ওয়াজিবের মতই। অর্থাৎ ওয়াজিবের ব্যাপারে যেমন জবাবদিহী করতে হবে, তেমনি সুন্নতে মুআক্কাদার ক্ষেত্রে জবাবদিহী করতে হবে। তবে ওয়াজিব তরককারীর জন্য সুনিশ্চিত শাস্তি পেতে হবে, আর সুন্নতে মুআক্কাদা ছেড়ে দিলে কখনো মাফ পেয়ে যেতেও পারে। তবে শাস্তিও পেতে পারে।

ফরজ নামাযের আগে পরের সুন্নতে মুআক্কাদার অত্যধিক গুরুত্ব দেয়া উচিত। এ কারণেই ফুক্বাহায়ে কেরাম লিখেন যে,
ﺭﺟﻞ ﺗﺮﻙ ﺳﻨﻦ ﺍﻟﺼﻼﺓ ﺍﻥ ﻟﻢ ﻳﺮ ﺍﻟﺴﻨﻦ ﺣﻘﺎ ﻓﻘﺪ ﻛﻔﺮ، ﻷﻧﻪ ﺗﺮﻛﻬﺎ ﺍﺳﺘﺨﻔﺎﻓﺎ ( ﺭﺩ ﺍﻟﻤﺤﺘﺎﺭ - 2/492 ، ﺑﺪﺍﺋﻊ ﺍﻟﺼﻨﺎﺋﻊ - 1/644

যদি কেউ সুন্নতকে হক মনে না করে এটাকে ছেড়ে দেয়, তাহলে এ কর্ম তাকে কুফরী পর্যন্ত নিয়ে যেতে পারে।

ﻭﺍﻥ ﺭﺁﻫﺎ ﺣﻘﺎ ﻓﺎﻟﺼﺤﻴﺢ ﺃﻧﻪ ﻳﺄﺛﻢ، ﻷﻧﻪ ﺟﺎﺀ ﺍﻟﻮﻋﻴﺪ ﺑﺎﻟﺘﺮﻙ، ﻛﺬﺍ ﻓﻰ ﻣﺤﻴﻂ ﺍﻟﺴﺮﺧﺴﻰ، ( ﺍﻟﻔﺘﺎﻭﻯ ﺍﻟﻬﻨﺪﻳﺔ - 1/112

তবে কেউ যদি সুন্নতকে সহীহতো মনে করে, কিন্তু অলসতা করে ছেড়ে দেয়। তাহলে সে গোনাহগার হবে।

(ﻗﻮﻟﻪ ﻭﺳﻦ ﻣﺆﻛﺪا) ﺃﻱ اﺳﺘﻨﺎﻧﺎ ﻣﺆﻛﺪا؛ ﺑﻤﻌﻨﻰ ﺃﻧﻪ ﻃﻠﺐ ﻃﻠﺒﺎ ﻣﺆﻛﺪا ﺯﻳﺎﺩﺓ ﻋﻠﻰ ﺑﻘﻴﺔ اﻟﻨﻮاﻓﻞ، ﻭﻟﻬﺬا ﻛﺎﻧﺖ اﻟﺴﻨﺔ اﻟﻤﺆﻛﺪﺓ ﻗﺮﻳﺒﺔ ﻣﻦ اﻟﻮاﺟﺐ ﻓﻲ ﻟﺤﻮﻕ اﻹﺛﻢ ﻛﻤﺎ ﻓﻲ اﻟﺒﺤﺮ، ﻭﻳﺴﺘﻮﺟﺐ ﺗﺎﺭﻛﻬﺎ اﻟﺘﻀﻠﻴﻞ ﻭاﻟﻠﻮﻡ ﻛﻤﺎ ﻓﻲ اﻟﺘﺤﺮﻳﺮ: ﺃﻱ ﻋﻠﻰ ﺳﺒﻴﻞ اﻹﺻﺮاﺭ ﺑﻼ ﻋﺬﺭ

সুন্নাতে মুয়াক্কাদা অর্থ হল,নফল নামায সমূহের মধ্যে অতিরিক্ত তাগিদ সম্পন্ন।এজন্য সুন্নাতে মুয়াক্কাদা সমূহ গোনাহ হওয়ার ক্ষেত্রে প্রায় ওয়াজিবের নিকটতম।

সুন্নাতে মুয়াক্কাদা তরককারী গোমরাহি ও তিরস্কারযোগ্য। যেভাবে বিনা উজরে ধারাবাহিক তরক করলে হয়।

আদ্দুর্রুল মুখতার-২/১২(দারুল ফিকর বাইরুত)

★ইমদাদুল আহকাম-১/৬০৫

★কিফায়াতুল মুফতী৩/৩১৯(দারুল এশায়াত)

★ফাতাওয়া দারুল উলূম-৪/২০৬(দারুল এশায়াত)

আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের  অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।

445 questions

437 answers

58 comments

286 users

13 Online Users
0 Member 13 Guest
Today Visits : 5277
Yesterday Visits : 5161
Total Visits : 683782
...