0 votes
26 views
in Salah (Prayer) by (6 points)
bashar baire jokhon jai, tokhon dekha jay je namaz porar jayga niye problem hoye jay.amar ashe pashe jara theke tader baire giye namaz porbo bolle kono kheyal e korbe na.ami ki tokhon isharay namaz porte parbo?

amar date par hoye jaoyar por o period hoy tai amake oyakto hoyar por e oju korte hoy.amon obosthay jodi oju korar jayga na pai tahole ki korte pari?

ar hizab ar upor diye kibhabe matha maseh korbo?

1 Answer

0 votes
by (14.3k points)
edited by
বিসমিহি তা'আলা

জবাবঃ-

সন্তান লালন-পালন সহ তাদেরকে কে সুশিক্ষায় সুশিক্ষিত করা এবং ঘরের দেখভাল সহ পর্দার পূর্ণ হেফাজতের সাথে ইবাদত ইত্যাদি আঞ্জাম দেওয়ার জন্য মহিলাদেরকে ঘরের ভিতর অবস্থানের ঘোষনা কুরআনে কারীম দিয়েছে।

পর্দা সম্পর্কে জানতে ক্লিক করুন-৫৭২

শরীয়ত অনুমোদিত প্রয়োজনে যদি কোনো মহিলা ঘর থেকে বের হন,এবং নামাযের কোনে জায়গা না পান,তাহলে ইশারা করে নামায পড়বেন।পরবর্তীতে যখন সুযোগ হবে তখন আবার উক্ত নামাযকে দোহরিয়ে পড়ে নিবেন।

জরুরী অবস্থায় নামায সম্পর্কে ফাতওয়ায়ে রাহমানিয়াতে(১/৩৪৮পৃঃ) সবিস্তারে বর্ণিত আছে,প্রয়োজনীয় কিছু অংশ নিচে উল্লেখ করছি......

এখানে তিনটি বিষয় জেনে রাখার দরকারঃ

১মঃ দাঁড়িয়ে নামায পড়া ।

২য়ঃ কিবলার দিকে মুখ রাখা ।

৩য়ঃ নিয়ম মুতাবিক রুকু-সিজদা সহ নামায পড়া । অর্থাৎ, ইশারায় রুকূ সিজদা না করা ।
যদি ট্রেন বা লঞ্চে বা বাসে উল্লেখিত তিনটির কোন একটি করা সম্ভব না হয়, তাহলে সে নামায ত্রুটিপূর্ণ অবস্থায় পড়ে নিবে । কিন্তু পরে দোহরানো জরুরী ।

গাড়ীতে লঞ্চে বা বাসে নামায পড়ার নিয়ম এই যে, প্রথমে দাঁড়িয়ে তাহরীমা বাঁধার পর পড়ে যাওয়ার ভয় থাকলে হেলান দিয়ে বা কোন কিছুকে ধরে দাঁড়াবে । মনে রাখতে হবে- হাত বাঁধা সুন্নাত । কিন্তু দাড়ানো ফরয । কাজেই প্রয়োজনের সময় সুন্নাত তরক করে ফরয আদায় করতে হবে । গাড়ী, লঞ্চ ও বাস কিবলা থেকে ঘুরতে থাকলে মুসল্লীও ঘুরবে এবং সর্বদা কিবলামুখী থাকবে । সিজদার সময় পিছনের সিটে পা ঝুলিয়ে বসে সামনের ছিটে কম করে ১ তাসবীহ পরিমাণ সময় সিজদা করবে । আর খালি জায়গা পেলে লঞ্চে, বাস বা ট্রেনের ফ্লোরে সিজদাহ করবে । আর যদি সিজদা করার মত কোন খালি জায়গা না পাওয়া যায়, তাহলে ইশারায় রুকূ-সিজদা করে নামায পড়ে নিবে । তবে এ ক্ষেত্রে গন্তব্যে স্থলে পৌঁছে নামায দুহরিয়ে পড়তে হবে । তবে যানবাহনে যদি কেউ বিনা ওযরে বসে নামায পড়ে বা কিবলা থেকে চেহারা ফিরে যায়, তাহলে নামায দুহরিয়ে নিতে হবে ।

[প্রমাণঃ আহসানুল ফাতাওয়া ৪ : ৮৮ # ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়াহ ২ : ১২০]

সফরের অবস্থায় নামায আদায়- পুরুষ-মহিলা যার যেভাবে সম্ভব সে সেভাবেই আদায় করবে।পুরুষ যেভাবে আদায় করবে,মহিলারাও ঠিক সেভাবেই আদায় করবে।

বি:দ্রঃ নিয়মিত জরুরী অবস্থার নামায পড়া যাবে না।যদি চাকুরীর ধরুণ এমন করতে হয়,এবং চাকুরী করা অতিপ্রয়োজনীয় হয়, তাহলে এমন চাকুরী ছেড়ে দিয়ে ইবাদত পালনযোগ্য এমন কোনো বৈধ চাকুরী খুজে নিতে হবে।

প্রতিটি রাস্তার পাশে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে নারী-পুরুষ উভয়ের বিশেষকরে নারীদের নামাযের ব্যবস্থা রাখা হুকুমতের দায়িত্ব ও কর্তব্য।
যাতে পথচারী তার ইবাদতকে প্রশান্তির সাথে পালন করতে পারে।পুরুষের নামাযের ব্যবস্থা অনেক জায়গায় পাওয়া গেলেও নারীদের কোনো ব্যবস্থা নেই।হুকুমতের টনক নড়াতে মুসলমানদের সজাগ হতে হবে।

আল্লাহ মুসলিম জনতা এবং সরকার সবাইকে যার যার  দায়িত্ব পালন করার তাওফিক দান করুক।

ওজুর স্থান না পেলে তায়াম্মুম করে নিবেন।সাথে একটি পাথর রাখতে পারেন।যা দ্বারা মাসেহ করা যায়।

মাথার চার ভাগের একভাগ ওজুতে মাসেহ করা ফরয।সুতরাং হিজাব খুলেই মাসেহ করতে হবে।

আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

উত্তর লিখনে

মুফতী ইমদাদুল হক

ইফতা বিভাগ, IOM.

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের  অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।

354 questions

332 answers

36 comments

224 users

9 Online Users
0 Member 9 Guest
Today Visits : 97
Yesterday Visits : 5511
Total Visits : 315510

Related questions

0 votes
1 answer 20 views
asked Oct 11 in Salah (Prayer) by fariha islam
0 votes
1 answer 18 views
asked Nov 7 in Taharah (Purity) by tanhaa (4 points)
...