0 votes
118 views
in Salah (Prayer) by
আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ শায়খ,

আমি এরকম জানি যে - নামাজে কিয়াম একটা আলাদা রুকন, রুকুতে যাওয়া একটা আলাদা রুকন, রুকু একটা আলাদা রুকন, রুকু থেকে উঠে সোজা হয়ে দাঁড়ানো একটা আলাদা রুকন, সিজদায় যাওয়া, সিজদা, সিজদা থেকে উঠে সোজা হয়ে বসা, বসে তাশাহুদ পড়া বা বৈঠক এগুলো একেকটা আলাদা আলাদা রুকন।

তাই আমি নামাজে দাঁড়ালে যখনই শরীরে কোথাও চুলকানোর প্রয়োজন পড়ে ১ম রাকাতে দাঁড়িয়ে যখন সুরা পড়ি তখন একবার বা দুবার (তিনের কম) শরীর চুলকাই  , দুবার চুলকানোর মাঝে তিন তাসবীহ পরিমাণ সময় গ্যাপ রাখি। এভাবে যখন ১ম রাকাতের রুকুতে যাই বা সিজদা দিতে যাই পাজামা টাখনুর উপর উঠে গেলে বা নামাজের হিজাব হাতের কব্জি থেকে  সরে গেলে ঠিক করে নেই তিনের কম বার।

উপরে বলা একেকটা রুকনে তিনের কমবার এরকম করি। কারণ কোথাও যেন পড়েছিলাম তিন বার বা এর বেশিবার শরীর চুলকালে নামাজ ভেঙ্গে যাবে আমলে কাসীর হয়ে।

কিন্তু আমার মনে হচ্ছে আমার মাসআলাটা বুঝতে ভুল হচ্ছে, আমার নামাজ মনে হয় হচ্ছে না। আমি যতগুলো রুকনের কথা উল্লেখ করলাম এগুলোতে মনে হয় কোনো ভুল হয়েছে। দয়া করে আমাকে জানাবেন শায়খ, আমার পদ্ধতিতে ভুল থাকলে তা কোথায় আর কতবার ও কিভাবে আমি শরীর চুলকাতে পারব, কারণ নামাজে দাঁড়ালে আমার শরীর অনেক চুল্কায় হয়ত শয়তানের ওয়াসওয়াসায়।

1 Answer

0 votes
by (19.3k points)

বিসমিহি তা'আলা
সমাধানঃ-

শয়তান মানুষের প্রকাশ্য শত্রু।শয়তানের ওয়াসওয়াসা থেকে আমাদের সবাইকে আল্লাহ হেফাজত রাখুক।

মনে রাখবেন, যখনই শয়তান ওয়াসওয়াসা দিতে চাইবে,তখন আল্লাহ তা'আলা সেই শাশ্বত বানীকে স্বরণে আনবেন,যেথায় আল্লাহ শয়তানকে লক্ষ্য করে বলেছিলেন,তোর মাধ্যমে যতই মানব-দানব গোমরাহ হোকনা কেন,আমি নিজ দয়াগুণে সবাইকে ক্ষমা করে দেবো,যদি তারা তাওবাহ করে।

শয়তানের সাথে আল্লাহ তা'আলা বাকবিতণ্ডা শুনুন......

ﻟَّﻌَﻨَﻪُ ﺍﻟﻠّﻪُ ﻭَﻗَﺎﻝَ ﻟَﺄَﺗَّﺨِﺬَﻥَّ ﻣِﻦْ ﻋِﺒَﺎﺩِﻙَ ﻧَﺼِﻴﺒًﺎ ﻣَّﻔْﺮُﻭﺿًﺎ

যার প্রতি আল্লাহ অভিসম্পাত করেছেন। শয়তান বললঃ আমি অবশ্যই তোমার বান্দাদের মধ্য থেকে নির্দিষ্ট অংশ গ্রহণ করব।

ﺃُﻭْﻟَـﺌِﻚَ ﻣَﺄْﻭَﺍﻫُﻢْ ﺟَﻬَﻨَّﻢُ ﻭَﻻَ ﻳَﺠِﺪُﻭﻥَ ﻋَﻨْﻬَﺎ ﻣَﺤِﻴﺼًﺎ

তাদের বাসস্থান জাহান্নাম। তারা সেখান থেকে কোথাও পালাবার জায়গা পাবে না।

ﻭَﺍﻟَّﺬِﻳﻦَ ﺁﻣَﻨُﻮﺍْ ﻭَﻋَﻤِﻠُﻮﺍْ ﺍﻟﺼَّﺎﻟِﺤَﺎﺕِ ﺳَﻨُﺪْﺧِﻠُﻬُﻢْ ﺟَﻨَّﺎﺕٍ ﺗَﺠْﺮِﻱ ﻣِﻦ ﺗَﺤْﺘِﻬَﺎ ﺍﻷَﻧْﻬَﺎﺭُ ﺧَﺎﻟِﺪِﻳﻦَ ﻓِﻴﻬَﺎ ﺃَﺑَﺪًﺍ ﻭَﻋْﺪَ ﺍﻟﻠّﻪِ ﺣَﻘًّﺎ ﻭَﻣَﻦْ ﺃَﺻْﺪَﻕُ ﻣِﻦَ ﺍﻟﻠّﻪِ ﻗِﻴﻼً

যারা বিশ্বাস স্থাপন করেছে এবং সৎকর্ম করেছে, আমি তাদেরকে উদ্যানসমূহে প্রবিষ্ট করাব, যেগুলোর তলদেশে নহরসমূহ প্রবাহিত হয়। তারা চিরকাল তথায় অবস্থান করবে। আল্লাহ প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন সত্য সত্য। আল্লাহর চাইতে অধিক সত্যবাদী কে?

সূরা নিসা-১২০-১২১-১২২

তাই সর্বদা শয়তান থেকে পানাহ চেয়ে

 "আউযু বিল্লাহি মিনাশ-শাইত্বানির রাজিম "পড়বেন।

আ'মলে কাছির সম্পর্কে জানতে ক্লিক করুন.....445

আপনার জানা রুকুন সমূহ ঠিক আছে।এবং সম্পর্কীয় মাসআলা জানাটাও সঠিক আছে।

তবে চুলকানোর অভ্যাসকে পরিত্যাগ করার চেষ্টা করুন।চর্ম ও এলার্জি বিশেষজ্ঞ দের দ্বারস্থ হোন।চিকিৎসা রাসূলুল্লাহ সাঃ এর সুন্নাত।

দীর্ঘ সময় ধরে নামায না পড়ে প্রথমে হালকা-পাতলা করে ফরয নামায পড়ে চুলকানোর অভ্যাসকে দূর করুন।পরবর্তীতে লম্বাকরে নামায পড়বেন।এবং লম্বা করে পড়াই নামাযের মূল মাহাত্ম্য।

আল্লাহ আপনার সার্বিক মঙ্গল করুক।আমীন।চুম্মা আমীন।

আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের  অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।

440 questions

431 answers

56 comments

282 users

11 Online Users
0 Member 11 Guest
Today Visits : 4403
Yesterday Visits : 4469
Total Visits : 650743
...