0 votes
14 views
in সালাত(Prayer) by (3 points)
edited by
আসসালামু আলাইকুম। আমি একজন স্কুল-ছাত্র। আমি ২ বছর পূর্বে কৈশোরে পদার্পন করেছি। শুনেছি, পুরুষদের জন্য জামাতে নামাজ আদায় করা ওয়াজিব। তাই আমি জামাতে নামাজ আদায় করি। আমি কম-বয়সী ছেলে। কুরআন হাদীস সম্পর্কে এত বিস্তর জ্ঞান আমার নেই। তবে জামাতে নামাজ কি আমার উপর ওয়াজিব? যেহেতু ২ বছর আগে আমার প্রথম স্বপ্নদোষ হয়।

আর আরেকটা কথা, আমার মা আমাকে জামাতে নামাজ আদায় করতে বাধা দেন না, কারণ তিনি মা হিসাবে আমার পরকালীন ভালো চান। তবে আমার বাবা আমাকে জামাতে নামাজ আদায় করতে বাধা দেন। যার কারণে আমি আজ মাগরীবের নামাজ আদায় করতে মসজিদে যেতে পারি নি। এখন যদি বাবা বাধা দিতে থাকে আর যেতে চাইলে প্রহার করে ও শক্তি প্রয়োগ করে তবে আমার করণীয় কী?

উল্লেখ্য এর আগেও আমি তার কারণে মাগরীব ও এশার নামাজ আদায় করতে মসজিদে মসজিদে যেতে পারি নি। আমার কি পাপ হয়েছে? আর যদি তিনি না বুঝে তবে আমার করণীয় কি? যদি করোনার অজুহাত দেখায় ও পিতার হুকুম মানতে হবে বলে বিরত রাখে তবে আমি কি করবো?

কুরআন হাদীস থেকে এর রেফারেন্স দিতে পারবেন কি? আর আমি যদি কুরআন হাদিস থেকে রেফারেন্স দিয়ে বাবাকে বুঝাই তবুও না বুঝে তবে কি করবো? আর যদি না যেতে দেয় তবে আমি তাকে কি বলবো?

আর নামাজে যেতে কি তার অনুমতি লাগবে? আর তিনি না করলেন কিন্তু আমি তবুও তার সামনে দিয়ে চলে গেলাম ও আমাকে তিনি আটকিয়ে বাধা দেন তবে আমি কি করবো? আর খারাপ আচরণ করলে আমার করণীয় কি?

আমি এই প্রশ্নগুলো করছি কারণ আমি শুনেছি পুরুষদের জন্য জামাতে নামাজ আদায় ওয়াজিব ও আমাদের নবী সা. জামাতে নামাজ আদায় করার ক্ষেত্রে ভীতি প্রদর্শন করেছেন তাই। অন্যদিকে মসজিদের ইমামও এ ব্যাপারে অনেক ফজিলত বর্ননা করেছেন। কিন্তু লোক দেখানোর জন্য আমি জামাতে নামাজ আদায় করতে যাই না।

উল্লেখ্য, তিনি নিজেও জামাতে নামাজ আদায় করে না অথচ বয়স ৪০ এর উপরে।

দয়া করে আমাকে দ্রুত জানাবেন, কারণ আরও নানান ইসলামিক ওয়েবসাইটে এই প্রশ্ন পাঠিয়েছি। কিন্তু কোথাও থেকে উত্তর পাইনি। তাই আমি এই ওয়েবসাইটটি ইন্টারনেটে খুঁজে পেয়েছি ও আজই নতুন একাউন্ট তৈরি করে এখানে রেজিস্টার করেছি।

1 Answer

0 votes
by (306,320 points)

ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু।
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
সন্তান যখন বালেগ হয়, তখন থেকেই ছেলেদের জন্য জামাতের সাথে নামায ওয়াজিব হয়।।সন্তান কখন বালেগ হবে? এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন- https://www.ifatwa.info/13073

https://www.ifatwa.info/1707 নং ফাতাওয়ায় বলেছি যে,
ইমাম বোখারী রাহ হাসান বসরী রাহ থেকে বর্ণনা করেন,
" إن منعتْه أمُّه عن العشاء في الجماعة شفقة:لم يطعها "
যদি মা তার সন্তানের কল্যাণ কামনায় তাকে অন্ধকারে এশার জামাতে যেতে বাধা প্রদান করে,তাহলে এক্ষেত্রে মায়ের আদেশকে মানা যাবে না।(সহীহ বোখারী-১/২৩০)

ইমাম আহমদ রাহ কে ঐ ব্যক্তি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলো,যার পিতা তাকে মসজিদে গিয়ে নামায পড়তে বারণ করে।ইমাম আহমদ রাহ প্রতিউত্তরে বললেন,
" ليس له طاعته في الفرض "
আল্লাহর ফরয বিধানের উল্টো পিতার আদেশকে মান্য করা যাবে না।(গেযাউল আদাব ফি শরহে মনযুমাতিল আদাব-১/৩৮৫)

সুপ্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনি ভাই/বোন!
জামাতের নামাযে শরীক হতে মাতাপিতা নিষেধ করলেও মাতাপিতার উক্ত নিষেধকে মানা যাবে না।

জামাতের নামায কখন তরক করা যাবে? এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন-https://www.ifatwa.info/1365


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...