0 votes
683 views
in হালাল ও হারাম (Halal & Haram) by (7 points)
১। এমন অনেক পরিবার আছে যেখানে বোন, ভাইকে যাদু করে। বাবা যাদু করে মেয়েকে। বুঝে হোক বা না বুঝে হোক নিজ স্বার্থ হাসিলের জন্য এসব করে। সম্পর্ক ছিন্ন না করলে তার এসব কর্মকান্ড থেকে বাঁচা একপ্রকার অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়। এক যাদু থেকে সুস্থ হবে আবার যাদু করে। এসব ক্ষেত্রে উক্ত ব্যক্তির সাথে আক্রান্ত ব্যক্তি সম্পর্ক ছিন্ন করতে পারবে কি?

২। আবার এমন অনেক পরিবার আছে যেখানে নিজে যাদু করে না কিন্তু যাদুকরের কাছে যায়। উক্ত যাদুকর হতে পারে কোনো তান্ত্রিক, মগা বৈদ্য, কবিরাজ, মুফতি সাহেব ইত্যাদি। বুঝে হোক বা না বুঝে হোক তাদের কাছে যায় এবং নিজের স্বার্থ হাসিল করে। এসব ক্ষেত্রেও কি সম্পর্কচ্ছেদ করা জায়েজ হবে? কারন টোটালি আলাদা না হওয়া পর্যন্ত তাদের ষড়যন্ত্র থেকে বাচা কঠিন।

৩। যদি সম্পর্কচ্ছেদ করা জায়েজ না হয় তাহলে তাদের ক্ষতি থেকে বাচতে শরীয়তের নির্দেশনা কি?

পুরো রেফারেন্স সহ উত্তর দিলে ভাল হয়। এই ফতোয়া যাদুগ্রস্থদের রুকইয়াহ করায় এমন গ্রুপের শেয়ার করা হবে ইন শা আল্লাহ।

1 Answer

0 votes
by (226,240 points)
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-

জাদুর প্রভাব থেকে নিজেকে বাঁচানোর জন্য কুরআন-হাদীসে বর্ণিত দু'আ গুলো পড়া হবে।যদি এ সম্পর্কচ্ছেদ ছাড়া আর কোনো রাস্তা না থাকে,তাহলে প্রয়োজন পর্যন্ত হেকমতের সাথে অনুমোদনযোগ্য হতে পারে।

 ফুকাহায়ে কিরামগণের মধ্যে একটি প্রসিদ্ধ মূলনীতি হল 
(১) ﺍﻟﻀﺮﻭﺭﺍﺕ ﺗﺒﻴﺢ ﺍﻟﻤﺤﻈﻮﺭﺍﺕ
(প্রয়োজন অনেক নিষিদ্ধ জিনিষকে বৈধ করে দেয়)
এটা একাটা নীতিসিদ্ধ মৌলিক ফিকহী ক্বায়দা বা ধারা যা কোরআন এবং হাদিসের থেকে চয়ন করা হয়েছে।(আল আসবাহ ওয়ান নাযাইর-ইবনে নুজাইম ১/২৭৫)


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

Related questions

...