0 votes
36 views
in সালাত(Prayer) by (2 points)
আসসালামু আলাইকুম। আমি সাধারণত যে রুমে থাকি এবং নামায পড়ি সেই রুমে এবার তারাবি নামায পড়ানো হয়।ইমাম আমার রুমে দাঁড়ান এবং মহিলারা পাশের রুমে। এখন আমি যদি আমার রুমে ইতিকাফে বসি তাহলে কি শুধু নামাযের সময়টাতে পাশের রুমে গিয়ে নামায পড়তে পারব? এতে কি ইতিকাফ ভেঙ্গে যাবে?

(বিঃদ্রঃ অন্য কোন রুমে ইতিকাফে বসার উপায় নেই)

জাযাকাল্লাহ খায়ের

1 Answer

0 votes
by (97,760 points)

বিসমিহি তা'আলা

জবাবঃ-

ইমাম সাহেব আপনার রুমে আর আপনারা পাশের রুমে, এরকম না করে বরং আপনারা মহিলারা আপনার রুমেই দাড়ান যেখানে ইমাম সাহেব বর্তমানে দাড়াচ্ছেন।আর ইমাম সাহেবকে পাশের রুমে দিয়ে দেন।

অর্থাৎ যেটা আপনার রুম,এবং যেখানে সর্বদা নামায পড়া হয়।যাকে ঘরের মসজিদ বলা হয়।সেখানেই তারাবিহর নামাযের সময় আপনি দাড়াবেন।আর পাশের রুমে ইমাম সাহেব দাড়াবেন।তখন আর আপনাকে তারাবিহর নামাযের জন্য এ'তেক্বাফ স্থল থেকে বের হতে হবে না।

এ'তেক্বাফ স্থল থেকে বের হয়ে অন্য কোথাও যাওয়া জায়েয হবে না।চায় তারাবিহর জন্যই হোক না কেন।তখন আপনাকে এ'তেক্বাফ স্থলে একা একা নামায পড়তে হবে।

এ সম্পর্কে আরো জানতে ভিজিট করুন- 1322

নামাযে নারী-পুরুষের মুহাযাত তথা সামনাসামনি হয়ে যাওয়া নামায ভঙ্গের কারণ।তবে মুহাযাতের মাধ্যমে নামায ফাসিদ হতে হলে সাতটি শর্ত রয়েছে।

এরমধ্যে পাঁচ নাম্বার শর্ত হলো,

الخامس كونهما في مكان واحد بلا حائل؛ لأنه يرفع المحاذاة وأدناه قدر مؤخرة الرحل؛ لأن أدنى الأحوال القعود فقدر أدناه به وغلظه كغلظ الإصبع والفرجة تقوم مقام الحائل ولهذا لم يفردها بالذكر وأدناه قدر ما يقوم فيه الرجل، كذا قال الزيلعي.

নারী-পুরুষ উভয় একই স্থানে পাাশাপাশি প্রতিবন্ধকতা বিহীন হওয়া।প্রতিবন্ধকতা  মুহাযাতকে বাধা প্রদাণ করে।সর্বনিম্ন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টিকারী হলো,এক আঙ্গুল চওড়া এবং দেড়হাত উচু কিছু একটা মধ্যখানে থাকা।একজন পুরুষ দাড়াতে যতটুকু জায়গার প্রয়োজন মধ্যখানে ততটুকু ফাঁকা জায়গাই মুহাযাতের জন্য প্রতিবন্ধকতার শামিল।(দুরারুল হুক্কাম শরহু গুরারিল আহক্বাম-১/৯১)
আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

উত্তর লিখনে

মুফতী ইমদাদুল হক

ইফতা বিভাগ, Iom.


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

–1 vote
1 answer 52 views
...